Film review, media

Watching Nightcrawler: A wake-up call on media morality

Film poster

Poster for the film
Source: Den of geek

Films are a luxury these days, compared to the old times when they were a commodity. Writing a film review is easy now than it has ever been, as we cherish things that have become a rarity, and moreover, if I tried to write a film review when I watched more than one film a day, there wouldn’t have been enough hours in a day. After probably six months since watching a film, during the Christmas period, I watched Gnomeo and Juliet, and De rouille et d’os of Jacques Audiard. Then this weekend my eyes suddenly fell on a DVD while doing the grocery shopping in Morrisons. The blurb on the jacket suggested a gripping story of a freelance cameraman getting sucked into the underbelly of the LA criminal world. It had a promise of a crime thriller where the amateur cameraman uncovered the vicious criminal gangs. He did, but Nightcrawler was by no means a Hollywood good vs evil story. It is a far darker and sinister storyline that probably broke many stereotypes about Hollywood films produced over the years. It was an uncomfortable film to watch, and the effect is still lingering as I type these words.

Nightcrawler was released in 2014 so there is no spoiler alert here. And just reading these words won’t create the effect the film did. In short, Lou Bloom lives a destitute life in downtown LA, living off odd jobs but his hunger to achieve more, drives him to desperately start looking for newer means. One night as he was turned down a job where he sold stolen material, he drove past an accident scene and found a freelance cameraman filming the scene. Lou learns that by becoming a stringer — a freelance cameraman, he could earn easy cash. He buys a camcorder and a police radio scanner. After a few failed attempts, Lou captures someone shot in the neck and sells the footage to a news channel. There he meets Nina, the news editor. Her penchant for serving the story people want to see, mainly concerning affluent white families as victims in central LA neighbourhood areas gave Lou a clear idea what she’s looking for. As Lou starts to find success, his inner drive to do more, and Nina’s unrelenting support violating ethical boundaries of news reporting makes Lou take more risks, become more dangerous and desperate. He hires an assistant, and soon Lou realised that Nina is as desperate for his videos as he is for achieving something in his life. The film climaxes as they reach the scene of a shooting that would become breaking news, Lou hides the part of the tape showing the gunmen so he could film them getting caught another time, in another neighbourhood. After a shootout, one gunman escapes who is later killed by police after a chase that Lou and his assistant catch live, and Lou manages to trick his assistant in believing the gunman was dead. He gets shot and the gunman faces Lou, filming death of his assistant before police shot the gunman. Police later interrogate Lou but couldn’t prove that he hid the information. On the last scene, he’s seen to be running a new business hiring apprentices.

I remember watching Jake Gyllenhaal in October Sky and over the years, I thought he was Hollywood’s male version of Meg Ryan, having a face that never ages. Paired with the looks, he has a boyish voice that never developed into a baritone, like Tobey MaGuire’s. From that aspect, it was difficult to imagine Jake in a role that is so dark, and creepy. But at the end of the film, I was left wondering whether I’ve just watched the best career performance of Jake. He is a tour de force in Nightcrawler, it is not easy to watch, but that relentlessly uncomfortable feeling was Jake’s success. He lived and breathed in that character, emanating a sense of menace. Lou’s mannerisms, especially his business management parlance in almost every possible situation, paired with his obsessive expressions while covering the crime or accident scenes were uncanny, to say the least, and often monstrous. As he soullessly moved towards achieving one reckless feat to the next, his character shows no compassion or remorse for the victims. To him, they were just rungs of the ladder that will take him high up the corporate echelon he so painstakingly prepared himself for but was never allowed a break. He makes you squirm in disgust and enraged in hate. In the film, Jake looked almost emaciated, his bare arms uncharacteristically thin. I found out later that he lived on a diet of kale chips to lose all the weight. This brings to mind another virtuoso performances by Adrien Brody in The Pianist and Christian Bale in The Fighter, where the actors went to great lengths to mould their physique into the character they were portraying. Jake’s gaunt face, unassuming stature made him blend into the background of the film that all his expressions gained a new dimension. Nightcrawler is all about the superlative performance by Jake Gyllenhaal, and it is definitely worth watching just to watch him.

Yet, Nightcrawler is not just about Jake’s performance, it has plenty more to offer. The script is superb. It’s sleek, at times the suspense was too gripping to handle. And that is paired with fantastic night cinematography of LA, especially the long shots overlooking the city, or the crossroads. The film revolved around three central characters, and Rene Russo and Riz Ahmed played their part brilliantly to let Lou Bloom cast his dark spell on the viewers’ minds. Although a film is remembered by the actors’ performances, it’s the less praised behind the scenes work that makes the film successful. For Nightcrawler, this would be the scriptwriter and the director, for taking up a challenging subject. The film could be classified as Noir, with Jake Gyllenhaal as an anti-hero. It did not try to make him appear psychotic, and most of the Hollywood anti-heroes turn up, nor he dies in the end, nor he finds a sudden sense of morality and becomes the good guy in the end. Lou Bloom is a cutthroat optimist, he doesn’t let anything come between him and his success, he is desperate, and in the end, it shows that he gets away with all his unethical demeanour. A negative character not being punished at the end of the story — where does this stand on good vs evil? A non-ideal end made Lou Bloom more realistic, and thus more frightening. The other stereotype that was broken was the relationship between Lou Bloom and Nina. Hollywood hardly shows older women against younger men, unless it was like The Graduate, where the older female seduces the young actor. In Nightcrawler, Lou blackmailed Nina to get her to sleep with him. There is no love blossoming in there air, but just hard transactional relationship — Lou helps Nina keep her job, and he wanted sex in return. There are certain loopholes in the film that might interest the people who like finding gaffes, such as Lou getting away with hiding footage of the shootout from police, and CCTV evidence would easily have proved that he traced the killers and not the other way around. Also, confiscating his laptop would have shown that he searched for the car number plate. Yet, Nightcrawler will be remembered for the unforgettable acting by Jake Gyllenhaal, not the minor gaps in the storyline.

Finally, like moral of a fable comes a moment when you analyse a film with the present context and decide whether the film succeeds in conveying any message to its viewers that are relevant to our society. From this aspect, I’d hail Nightcrawler to have addressed one of the biggest perils of our society — of warped, directed and suggestive media reporting. Funnily enough, I remembered the Family Guy episode where Peter Griffin steals many Nielsen boxes and bargains with news channels how he wanted all the programmes altered. In reality, Nightcrawler is a stark reminder of the way media manipulates the truth, in order to make news sensational. Rene Russo in Nina personifies the uncouth, greedy media houses, where their viewership is fuelled by panic mongering and misinformation. The unfortunate events of Brexit and Donald Trump victory highlight the role right-wing media played in those two cases. In the case of Brexit, we saw Sun, Daily Mail and Daily Express wage a hate campaign against the migrants in the UK and against EU governance. The failure of the Leave campaign to deliver any of the promises only outlined the vacuous media bias towards Leave. They worked on people’s fear, and distrust and created an atmosphere of animosity within the country that has split the country for the foreseeable future. The same has happened in the USA as well, and the consequences much grave than Brexit. The willingness to go any lengths to twist the reality is very prominent in Nightcrawler. Although a sane mind doubts whether a news channel could lower themselves that low just to with some TRP, a present appreciation of the current situation only corroborates the message conveyed in the film. It should serve as a wake-up call to the viewers — or the customers of the media that unless the public collectively rejects the sensationalist media reporting, they will resort to more dangerous means, just as Lou Bloom did in the film, and it could do irreparable damage to the fabric of our society.

The thought that, what we watched in Nightcrawler is happening every single day at every single corner of the world, fills the viewer with an uncomfortable feeling. And that is the success of the film — the uneasiness, the queasy feeling that you get in your mouth after the film is over. Nightcrawler will be one of those films that I will be desperate to watch it again, but will never watch it ever, for the unpalatable truths that film makes us face, and we cannot just eject the disc and think — “It’s only a film”!

Advertisements
Standard
Blogs, philosophy

ব্লগ কেন লিখি

কেন ব্লগ লিখি? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গেলে মনে ভেসে ওঠে কয়েকটা সাল যেগুলো এই লেখালেখির পেছনে তাগিদ যুগিয়েছিল। প্রধান কারণগুলোর মধ্যে থাকবে খানিকটা বিষাদ, খানিকটা লেখালেখির চিরকালের চাপা ইচ্ছা, কিছু অসামান্য অভিজ্ঞতা আর একটা খুন। হ্যাঁ খুনও, তবে সে প্রসঙ্গে আসবো যথাসময়ে। 

ছোটবেলা থেকেই বইয়ের পোকা হবার সুত্রে বিভিন্ন ধরনের লেখার সাথে পরিচয় হয়েছে বহুদিন ধরে। স্কুলে দেখতাম বন্ধুরা কবিতা গল্প লিখছে, স্কুলের পত্রিকায় ছাপাও হচ্ছে সেসব লেখা। মনে একরকম হিংসা থেকেই লেখার চেষ্টা করেছি কয়েকবার স্কুল জীবনে কিন্তু সে লেখা নিজে পড়ে নিজেরই পাতে দেবার যোগ্য নয় বলে মনে হয়েছে। আরো একটা ব্যাপার লক্ষ্য করেছিলাম, কোন কাজ অন্যের থেকে দেখে হুবহু নকল করা বা সেই কাজকে ইম্প্রোভাইজ করে আরো নিখুঁত বানানো যতটা সহজ লাগে আমার, ততটাই কঠিন নিজে ভেবে কোন কিছু সম্পূর্ণ নতুন কিছু সৃষ্টি করা, তা সে গল্প কবিতাই হোক বা ছবি, গান, সুর। তাই ম্যাপ আঁকা যত সহজ মনে হয় আমার, তার চেয়ে ঢের কঠিন ঠেকে একটা কুকুর আঁকা। এসব থেকে একটা ধারনা মনে বদ্ধ হয়ে গেছিল যে আমি তেমন সৃষ্টিশীল (ক্রিয়েটিভ) নই। 
 
সে তো হল কিন্তু কেবল সৃষ্টিশীল মানুষেই যে লেখালেখি করে তা তো নয়। কাজের বা উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে রিপোর্ট লেখা এক অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ, সেই রিপোর্ট লিখতে গিয়ে দেখলাম লেখার ধরনধারন মন্দ নয় আর যতটা সম্ভব ব্যাকরণে তেমন ভুলভ্রান্তিও নেই, অনেক ক্ষেত্রে এমনও হয়েছে যে নিজের লেখা পড়ে নিজেই চমকে গেছি। সেই থেকে ইচ্ছা জেগেছিল গল্প কবিতার মত ক্রিয়েটিভ কিছু না পারলেও প্রবন্ধ, কোন ঘটনার বিবরন ইত্যাদি লেখার। কিন্তু কি নিয়ে লিখবো তা নিয়ে প্রচুর দ্বন্দ্ব ছিল মনে, তাই দুএকটা National Geographic এর তথ্যচিত্রের বিবরন লেখা ছাড়া তেমন কিছুই লেখালেখি করা হয়নি। 
 
বাড়িতে কম্পিউটার কেনার পর হাতে যখন পর্যাপ্ত সময়, দিনরাত আড্ডা মেরেও কাটছেনা, তখন দেখলাম দু চারজন বন্ধু ব্লগ বলে কি একটা লেখা শুরু করেছে। হুজুগে পড়ে একটা অ্যাকাউন্টও খুলে ফেললাম কিন্তু লেখা কিছুই হল না, যাকে বলে হাতে রইল পেনসিল। লেখা শুরু হল ২০০৭ এ যখন MBA পড়ার জন্য লেখার মান বাড়ানোর চাপ শুরু হল। হাবিজাবি বিষয় নিয়ে লিখে ফেললাম বেশ কয়েকখানা ব্লগ। ২০০৮ এর দু তিনটে লেখা মনে ধরল বেশ, লেখাগুলো অনেক সময় অতীতের স্মৃতিচারণ না হয় মনের ভাবনা, কিন্তু লেখার গতির চেয়ে মনে ধরল ভাবনা চিন্তাগুলো যেগুলো বেশ অ্যাবস্ট্র্যাক্ট বলা যেতে পারে, lateral ভাবনার একটা ছোঁয়া ছিল ব্লগগুলোয়। ঠিক যেই সময় লেখাতে একটা ভরবেগ (momentum) আসছে সেই সময় চাঁটিবাঁটি গুটিয়ে রওনা দিলাম বিলেতে, পড়ার আর চাকরি খোঁজার চাপে মাথায় উঠল লেখালেখি। অবসর সময় বরাদ্দ হল ফুটবল আর নেট-এ সিনেমা গান ইত্যাদি। 
 
২০১০ সালটা অবশ্যই থাকবে লেখালেখি শুরু করার পেছনে রসদ জোগানোর জন্য। এই বছর শুরুর দিকে নতুন চাকরি জয়েন করলাম, মাথায় যে আকাশছোঁয়া বেতনের অলীক স্বপ্ন ঘুরছিল, সেটা শেষে ভেঙে চুরমার হল। পড়তে আসার সময় আত্মীয়রা জিজ্ঞেস করত কবে ফেরত যাবো, আমিও খুব জোরগলায় বলতাম এই পড়ার ধার শোধ হতে যতদিন লাগে দু তিন বছর এই যা। চাকরি শুরু করার পর দেখলাম পুরো আট বছরই লাগবে সব ঋণ শোধ করতে। তারপর কিছু সঞ্চয় করে ফেরত যেতে যেতে প্রায় বারো চৌদ্দ বছর। এই বহুদিন প্রবাসে থাকার কথা ভেবে ফ্রাস্ট্রু খেয়ে অবসর সময় মনে করার চেষ্টা করতাম হারিয়ে যাওয়া দিনগুলো—কুস্টিয়া জলপাইগুড়ি এসপ্ল্যানেড কলেজ স্ট্রীট। 
 
পুরনো দিনগুলোকে এক জায়গায় সঞ্চয় করার ইচ্ছাটা এই সময়েই শুরু হয়। মনে হচ্ছিল স্মৃতিশক্তি তেমন জোরাল নেই আর, তাই ভুলে যাবার আগেই সব ঘটনাগুলোকে কোথাও লিখে রাখাটা দরকার। ২০১০ এর শেষের দিকে দুর্গাপুজায় বাড়ি গিয়ে সেই তাগিদ চরমে উঠল, ফিরে এলাম একরাশ স্মৃতি আর মনখারাপ নিয়ে, তবে সেইসাথে রীতিমত বদ্ধপরিকর হয়ে বাক্সভর্তি চার-পাঁচখানা ডাইরী আর গুচ্ছের জেল পেন সঙ্গে নিয়ে এলাম ডাইরীতে সব পুরনো স্মৃতিগুলোকে লিখবো বলে। তখনো জানতামনা যে সংসারী হব কিনা কোনদিন তবে মনে হত যেভাবে দিন বদলাচ্ছে হুহু করে, আমি জীবনে যা সব দেখেছি সেসব এখন একমাত্র মাথার মধ্যে ছাড়া হয়ত তার আর কোন চিহ্নই নেই। জানিনা কে পড়বে এইসব পুরনো দিনের লেখা কিন্তু অনেকটা ভবিষ্যতের প্রতি দায়িত্ববোধ থেকেই ঠিক করলাম মনে যে সব ছোটবড় স্মৃতিগুলো জমে আছে সেগুলো লিখে রাখবো যাতে বয়সের সাথে এসব হারিয়ে না যায়। হয়তো অন্যদের চেয়ে আমার নিজের জন্যই শুরু করেছিলাম লেখাগুলো, যাতে পরে ভুলে গেলেও ডাইরী থেকে সেই মনিমুক্তোগুলো পুনরুদ্ধার করা যায়। বেশ তোড়জোড় করে লিখলাম কয়েক পাতা তারপর আবার যে কে সেই, সব উত্তেজনা নিমেষে উধাও। তবে রয়ে গেল ডাইরীগুলো মাঝে মাঝেই মনে করিয়ে দেবার জন্য যে এটা একটা প্রকল্প ছিল যেটা এখনো শুরু করা যায়। 
 
২০১৩ য় বিয়ের আগে আর পরে আমি আর জেনিফার অনেক জায়গায় ঘুরতে গেছিলাম আর সেই সুত্রে Tripadvisor এ বেশ কিছু রিভিউ লিখলাম হয় জায়গা না হয় রেস্টুরেন্টদের নিয়ে। সেটা চালিয়ে যাবার ইচ্ছা ২০১৪তে থাকলেও আমাদের জীবনে সোফিয়া আসার পর সময় শক্তি কোনটাই তেমন অবশিষ্ট ছিলনা। তবে তাগিদ একটা রয়ে গেছিল সব সময় যে সংসারের সাথে সাথে নিজের ব্যক্তিগত সময়টাও বজায় রাখা। ১৪র শেষের দিকে আবার সেই ইচ্ছাটা প্রবল হল, আর অনেক বিস্তারিত ভাবে লেখার পরিকল্পনা তৈরি হল – ভ্রমনের অভিজ্ঞতা ডাইরীতে আর Tripadvisor এ, অতীতের স্মৃতিগুলো ২০১০ এ কেনা সেই ডাইরীগুলোয়। এই প্ল্যানে লেখা মানেই বিবরণ, আবার সেই রিপোর্ট, বিষয়ভিত্তিক কোন কিছু নিয়ে ভাবনাচিন্তা করে লেখার কোন ইচ্ছা তখনো জাগেনি। তবে নিজে হাতে ডাইরীতে লেখা বা Schaeffers, Mont Blanc জাতীয় কলম ব্যবহারের আশা যতটা ছিল, আমার অখাদ্য হাতের লেখা যা অনেক সময় আমি নিজেই পড়তে পারিনা সেটা অন্যে কিভাবে পড়বে সেই চিন্তা করে অন্য মাধ্যম নিয়েও চিন্তাভাবনা শুরু করেছিলাম যেমন ব্লগ বা নিদেনপক্ষে কম্পিউটারে টাইপ করা। লেখা শুরুও হয়েছিল পুরোদমে, প্রথমে বিভিন্ন বেড়ানোর বিবরন দিয়ে নতুন কেনা ডাইরীতে। তবে আগেও যা হয়েছে, প্রচুর উদ্যম নিয়ে শুরু করলেও মাঝপথেই আবার ইতি হয়ে গেল যখন কাজের চাপে নাভিশ্বাস ওঠার জোগাড় হল। 
 
যে কারনে লেখাটা শুরু করেছিলাম কিছু সালের কথা দিয়ে, তার প্রধান কারন হল ২০১৫ সাল যা লেখালেখির উৎসাহ উদ্দীপনা প্রেরণা সব কিছুর মুলে। ফেব্রুয়ারীর মাঝের দিকে গেলাম ফ্রান্স। অনেকদিনের আকাঙ্খা স্বপ্ন জড়িয়ে ছিল ফ্রান্স নিয়ে তাই সব খুঁটিনাটি বর্ণনা আর সেই বহুকালের জমে থাকা ইচ্ছেগুলো মনের থেকে মুক্ত করে কোথাও স্থায়ীভাবে জমা করাটা ছিল বাঞ্ছনীয়। সুতরাং আবার শুরু হল লেখা আর মাধ্যম যদিও প্ল্যানমাফিক হবার কথা ভ্রমনের ডাইরী, শেষে ঠিক করলাম ব্লগ, আর সাত বছর বাদে জুড়লো আরো দুখানা লেখা সেই পুরনো অ্যাকাউন্টে। সেখানেই হয়তো থেমে যেতাম, কিন্তু একটা মর্মান্তিক ঘটনা সব প্ল্যান পরিকল্পনা ঘেঁটে দিল। 
 
তারিখটাও মনে আছে, ২৬শে ফেব্রুয়ারী। ফ্রান্স যাত্রার ব্লগ সবে শেষ করেছি এমন সময় দেখি ফেসবুক উত্তাল ঢাকায় ঘটে যাওয়া এক সাম্প্রদায়িক খুন নিয়ে। নিহতের পরিচিতি তিনি ব্লগার, তাঁর লেখায় তিনি সব ধর্মের কুফল কুসংস্কার নিয়ে তুলোধোনা করতেন। বাস্তবিকভাবেই গোঁড়া অন্ধবিশ্বাসী অজ্ঞ কিছু লোকের কাছে তিনি হয়ে উঠেছিলেন বিষফোঁড়ার মত তাই তাঁকে চুপ করানো বা পুরো দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেবার পুন্যলাভের পিপাসু শহীদ পাওয়া বিরল ছিলনা। অভিজিৎ রায়কে আমি চিনতাম না, জীবিতাবস্থায় তাঁর লেখা হয়তো চোখে পড়ে থাকবে কিন্তু মনে গেঁথে থাকার মত কিছু মনে পড়ছেনা। সব ধর্মের প্রতি সমান অবজ্ঞা অবিশ্বাস থেকেই অনুভব করলাম অভিজিৎ যেমন ছিলেন তীব্র সোচ্চার বিরোধী, শুধু ধর্মই নয় অনেক প্রাতিষ্ঠানিক জড়দ্গবতাই তিনি ঝেড়ে ফেলতে বদ্ধপরিকর হয়েছিলেন বাঙালি মানস থেকে, যা আমার জীবনদর্শনের সঙ্গে সম্পূর্ন মানানসই। 
 
অভিজিতের কয়েকটা লেখা পড়ে দেখলাম তাঁর লেখার মধ্যে আমার ভাবনাচিন্তাগুলো প্রতিফলিত হতে। আমি সমাজ পাল্টানোর স্বপ্ন দেখি কিন্তু অভিজিৎ সেটা শুধু কল্পনায় সীমাবদ্ধ না রেখে কাজে রূপান্তর করতে শুরু করেছিলেন। প্রচুর আফশোষ রয়ে গেল যে তাঁকে ধর্মের ছুতোয় অকালে সরিয়ে দিল যে বাঙালীগুলো তারা যে  নিজের জাতীর পায়ে কুড়োল মারল সেটা বোঝার সামর্থ্য তাদের নেই। 
 
অভিজিতের খুন আমার সব ভাবনা চিন্তা মানসিকতাকে ঝাঁকিয়ে দিয়ে গেল। কিছুদিন আগে একটা লেখা দেখেছিলাম ব্লগ লেখা কিভাবে একটা হুজুগ থেকে এখন লুপ্তপ্রায়। অভিজিৎ প্রমান করে দিয়ে গেলেন সেটা কতটা ভুল। অভিজিতের কাজকে অসম্মান না করেই বলছি, স্বপ্ন দেখলেও হাতেকলমে সমাজ বদলানোর লড়াই চালানোর মত দৃঢ়প্রতিজ্ঞা, দুরদৃষ্টি, সময়, ত্যাগস্বীকার, বীক্ষা আমার নেই। আমি শখে লিখি অবসর সময়ে যা এখন প্রায় নেই বললেই চলে। কিন্তু যতটুকু লিখি সেখানে স্মৃতি অভিজ্ঞতার পাশাপাশি নিজের ভাবনাচিন্তাগুলোরও জায়গা করে দেয়া যা আমার নিজের জীবনবোধের প্রতিচ্ছবি, সেটা সম্পূর্ণ প্রাসঙ্গিক হয়ে দেখা দিল ২৬শে ফেব্রুয়ারীপ পর থেকে। অনেকক্ষেত্রেই এই জাতীয় লেখায় প্রসঙ্গটাই মুখ্য, যদিও লেখার ধার পাঠকদের আকর্ষিত করে আর সেটাও আকাঙ্খিত কিন্তু অপরিহার্য নয়। 
 
তাই তখন থেকে ঠিক করলাম ব্লগ লেখা চালিয়ে যাবো, কাউকে বাধ্য করবনা ফেসবুকের মত ঘাড় ধরে পড়ানোর জন্য, কিন্তু লেখা চালিয়ে যাব। আগের যা পরিকল্পনা ছিল সেটা পাল্টাবোনা কিন্তু লিখবো সামাজিক রাজনৈতিক বিষয় নিয়েও বিশেষ করে যেখানে প্রসঙ্গগুলোর তাৎপর্য আমার কাছে অমুল্য। এর মাঝে ফেসবুকে ছোটখাট লেখায় বন্ধুরা উৎসাহ যুগিয়েছে তাদের ভাল লেগেছে বলে, সেটার গুরুত্বও কিছু কম নয়। কেউ পড়ে ভাল লেগেছে বললে সেটা লেখার তাগিদ বাড়াবে বটে কিন্তু সেটা না হলেও অন্তত একটা সন্তুষ্টি থাকবে যে ভবিষ্যতে পেছনের দিকে চাইলে দেখতে পাব এই লেখাগুলো যাতে জুড়ে থাকবে একটা প্রচ্ছন্ন গর্ববোধ যেটা এখন হয় আগের লেখাগুলো দেখে। এই প্রসঙ্গে এখানেই কলম থুড়ি কীবোর্ড থামালাম তবে আশা রাখবো যে উদ্যোগ নিয়ে শুরু করেছি সেটা বজায় থাকবে সপ্তা, মাসের গন্ডি ছাড়িয়ে বছরের দিকে…
Standard